মাত্র পাওয়া

পাবলিক স্থানে ধূমপান নিষিদ্ধ চাই 

ইমরান হাসান  | ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ৬:২৮ অপরাহ্ণ

পাবলিক স্থানে ধূমপান নিষিদ্ধ চাই 

মানুষ জন্মগতভাবে স্বাধীন, সেই সাথে সামাজিক প্রাণী । মানুষ স্বাধীন হবার পরেও তাকে কিছু বাধ্যবাধকতা মানতে হয়। কেননা প্রতিটি দেশ ও সমাজের কতোগুলো নিজস্ব আচার-আচরণ , রীতিনীতি, আদর্শ ও মূল্যবোধ থাকে, সেই সাথে থাকে নিয়ম কানুন । সে অনুসারে সমাজ ও  দেশের প্রতিটি নাগরিকের দায়িত্ব পালন করতে হয়। সমাজবিজ্ঞান বলে, নাগরিক বা একজন ব্যক্তির কাছ থেকে সমাজ কিছু ভালো আচরণ প্রত্যাশা। সেই আচরণকে কাঙ্ক্ষিত আচরণ বলে। তবে এই প্রত্যাশিত আচরণ থেকে আমরা দিন দিন দূরে চলে যাচ্ছি। এমন  একটি অপ্রত্যাশিত আচরণ ধূমপান।
আমরা  সকলে জানি, ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এতে আমাদের স্বাস্থ্যের নানাবিধ সমস্যা হতে পারে। এমন কি ধূমপানের কারণে একজন মানুষের ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগ আক্রান্ত হতে পারে। সেই সব জানার পরেও আমাদের দেশের অধিক অংশ মানুষ নিরদ্বিধায় ধূমপান করে যাচ্ছে, সে-ও আবার একেবারে প্রকাশ্যে। কিশোর থেকে বৃদ্ধ সবাই অবাধে চালিয়ে যাচ্ছে  এই তামাক জাতীয় নেশা। এতে করে একজন ধূমপানকারী যে শুধু নিজের ক্ষতি করছে তা না, বরং ক্ষতি করছে তার আশে পাশের থাকা মানুষগুলোর। একজন ধূমপানকারী  ধূমপান করলে যে ধোঁয়ার সৃষ্টি হয় তা বাতাসের সাথে মিশে আশেপাশে থাকা মানুষ গুলোর মাঝে ছড়িয়ে যায়।  এমন কি নিশ্বাস গ্রহণের সময় অনিচ্ছা সত্ত্বেও বিতরে চলে যাচ্ছে এই দোয়া । এতে করে পাশে থাকা বা চলাচল করা মানুষটির সমান ক্ষতি হবার সম্ভাবনা থেকেই যাচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে সমান ক্ষতি হচ্ছে তা অস্বীকার করা যাবে না।
বিশ্বের অনেক দেশেই প্রকাশ্যে বা পাবলিক স্থান গুলোতে ধূমপান নিষিদ্ধ। এমনকি পাবলিক স্থানে ধূমপানের মতো  অপরাধের জন্য শাস্তির বিধান আছে। সেই অর্থে এটাকে আমরা অপরাধ হিসাবে গ্রহণ করতে পারি বা ঐসকল দেশে গ্রহণ করা হয়। তবে দুর্ভাগ্য হলেও সত্যি আমাদের দেশে প্রকাশ্যে বা পাবলিক স্থানে ধূমপান করলে তার কোন শাস্তি হয় না। এমন কি ধূমপানকে অপরাধ হিসাবে গ্রহণ করা হয় না। যাতে করে এই নেশার  প্রতিনিয়ত বাড়াছে আগ্রহ, দিন দিন আরও বেশি  অগ্রসর হচ্ছে মানুষ ,সেই সাথে ধূমপানকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। যাতে করে সমাজ ক্ষতির দিকে যাচ্ছে আর আমরা শুধু দেখে যাচ্ছি। আমাদের সমাজ বা দেশের এমন অবস্থায় চলে গেছে যে রাস্তায় চলার পথে, বাজারে, চার দোকানে,গণপরিবহন কিংবা বিনোদন কেন্দ্র, পর্যটন কেন্দ্র সব জায়গাতেই অবাধে চলছে ধূমপান। যদি এক কথাই বলি তবে এমন কোন পাবলিক স্থান নেই যেখানে ধূমপান চলে না। সেই অর্থে একজন সাধারণ মানুষ নিজের অনিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও তার মাঝে বিষাক্ত তামাক পাতার দোয়া চলে যাচ্ছে। তাই একজন ধূমপানকারী ব্যক্তির মতো তাঁরও নানা সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। ধূমপানকারীর মতো সমান ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। যদিও এমন আচরণ ও রীতি আমাদের কাম্য নয়।
সমাজবিজ্ঞান বলে, অপরাধ নয়,  তবে সমাজে যে আচরণ প্রত্যাশিত না তাকেই বিচ্যুতি বলে। অর্থাৎ এই কাজ করলে শাস্তি হবে না তবে সমাজের মানুষ ঘৃণার চোখে দেখবে এমন সকল আচরণকে বিচ্যুতিমূলক আচরণ বলে। সেই সূত্র ধরে আমরা বলতে পারি ধূমপান একটি বিচ্যুতিমূলক আচরণ আমাদের দেশে । তবে বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে আমাদের সময় এসেছে পাবলিক প্লেসে দাঁড়িয়ে ধূমপানকে অপরাধ এর আওতাধীন করা যাতে করে ধূমপান করলে তাকে বিচার করা যায় অথবা পাবলিক স্থানে ধূমপান করলে তাকে আইনের আওতায়ই নিয়ে আশা যায়।
 সেই সাথে ধূমপান বন্ধ করতে এবং এ বিষয়ে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে এমন পদক্ষেপ গ্রহণ করা। যেমন  ধূমপানের ক্ষতি সম্পর্কে  বিস্তারিত জনগণের সামনে উপস্থাপন, গণমাধ্যমে প্রচার প্রচারণা চালানো, সামাজিকভাবে নিরুৎসাহিত করা, তামাক চাষ বন্ধে জোর প্রচারণা চালানো। এমনকি সরকার, প্রশাসন মানবাধিকার সংগঠন গুলো এই বিষয়ে বিশেষ ভূমিকা পালন এখন সময়ের দাবি। সেই সাথে দেশে প্রচলিত সকল মাদকদ্রব্য বন্ধে কার্যকর ভূমিকা পালনে প্রশাসনের সদয় দৃষ্টি  আকর্ষণ করছি। একই সাথে পাবলিক স্থানে ধূমপান নিষিদ্ধ করার দাবি জানাচ্ছি।
লেখকঃ ইমরান হাসান 
শ্রীপুর, গাজীপুর।

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

Calendar

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  

এক ক্লিকে বিভাগের খবর

div1 div2 div3 div4 div5 div6 div7 div8