মাত্র পাওয়া

দেশ “জাতীয় জরুরি অবস্থার” মুখে পড়েছে , যুক্তরাজ্যে শুরু লকডাউন : বরিস জনসন

| ২৪ মার্চ ২০২০ | ১১:৫২ পূর্বাহ্ণ

দেশ “জাতীয় জরুরি অবস্থার” মুখে পড়েছে , যুক্তরাজ্যে শুরু  লকডাউন : বরিস জনসন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে জনজীবনে কঠোর নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী।

এগুলোর মধ্যে মানুষ শরীরচর্চার জন্য দিনে এক বার বের হতে পারবে, “অতি জরুরি প্রয়োজনে” কাজে যাওয়া-আসা করতে পারবে, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি কিনতে পারবে এবং স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সেবা নিতে যেতে পারবে।

জরুরি নয় এমন পণ্যের দোকান-পাট বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে এবং একসাথে বসবাস করে না এমন ক্ষেত্রে দুই জনের বেশি মানুষ এক সাথে জমায়েত হওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

যুক্তরাজ্যে মৃতের সংখ্যা ৩৩৫ জনে পৌঁছেছে।

মানুষ যদি নির্দেশনা মেনে না চলে তাহলে পুলিশ তাদের বাধ্য করতে পারবে, জরিমানা করতে এবং সমাবেশ ভেঙ্গে দিতে পারবে, ডাউনিং স্ট্রিট থেকে এক টেলিভিশন ভাষণে এমনটা জানান প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

মিস্টার জনসন বলেন, দেশ “জাতীয় জরুরি অবস্থার” মুখে পড়েছে এবং জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা-এনএইচএস-কে রক্ষা করতে এবং প্রাণ বাঁচাতে বাড়িতে থাকাটা দরকার।

তিনি জানান, অন্তত তিন সপ্তাহ এই নিষেধাজ্ঞা থাকবে এবং এটি প্রতিনিয়তই মূল্যায়ন করা হবে।

সরকারিভাবে জানানো হয় নিচের চারটির যেকোন একটি অবস্থা হলেই কেবল বাড়ির বাইরে বের হওয়া উচিত। এগুলো হলো…

•খাবার ও ওষুধের মতো অতি জরুরি পণ্যের দরকার হলে বের হওয়া যাবে। তবে কেনাকাটার জন্য যত কম সম্ভব বাইরে বের হওয়া উচিত।

•হাঁটা, দৌড়ানো কিংবা সাইকেল চালানোর মতো একটি শরীরচর্চার জন্য দিনে একবার বের হওয়া যাবে। এগুলো একা করাটাই ভাল কিংবা যার সাথে বাস করেন তার সাথে করা যাবে।

•সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছেন এমন কোন ব্যক্তির চিকিৎসা সেবা বা অন্য কোন সেবা দেয়ার লক্ষ্যে। যেমন, প্রয়োজনে ১৮ বছরের কম শিশুদের তাদের বাড়িতে পৌঁছে দেয়া। বিভিন্ন ক্ষেত্রের কর্মীরা কিংবা যাদের শিশুরা ঝুঁকিতে রয়েছেন বলে শনাক্ত করা হয়েছে তারা সন্তানদের স্কুলে নিয়ে যেতে পারবে।

•কাজে যাওয়া-আসা করা। তবে যে ক্ষেত্রে বাড়িতে বসে কাজ করা সম্ভব নয় শুধু সেসব কর্মীরাই এই সুযোগ পাবেন।

উপরের নির্দেশনাগুলো মেনে চলার সময়ও বাড়ি থেকে বাইরে যথাসম্ভব কম সময় কাটানো উচিত এবং যাদের সাথে তারা বাস করেন না এমন মানুষদের সাথে দুই মিটার দূরত্ব বজায় রাখা উচিত।

এছাড়া সব ধরণের সামাজিক কর্মকাণ্ড সরকার নিষিদ্ধ করেছে যার মধ্যে রয়েছে বিয়ে, ব্যাপ্টিজম ও অন্যান্য অনুষ্ঠান। তবে শেষকৃত্য করা যাবে।

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত