• আক্রান্ত

    ৮৬৬,৮৭৭

    সুস্থ

    ৭৯১,৫৫৩

    মৃত্যু

    ১৩,৭৮৭

    ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট
  • মাত্র পাওয়া

    ব্যাংক রেট পাঁচ শতাংশ থেকে এক শতাংশ কমিয়ে চার শতাংশ

    | ৩০ জুলাই ২০২০ | ১০:৫৩ পূর্বাহ্ণ

    ব্যাংক রেট পাঁচ শতাংশ থেকে এক শতাংশ কমিয়ে চার শতাংশ

    ব্যাংক রেট পাঁচ শতাংশ থেকে এক শতাংশ কমিয়ে চার শতাংশ করা হয়েছে। বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রানীতি বিভাগ থেকে এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে সব ধরনের তফসিলি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হয়েছে।

    এর আগে ব্যাংক রেট ছয় শতাংশ থেকে কমিয়ে পাঁচ শতাংশ করা হয়েছিল ২০০৩ সালের ৬ নভেম্বর।

    ব্যাংক রেট কমানোর জন্য চলতি বছরের শুরুর দিকে সরকারের অগ্রাধিকার খাত বাস্তবায়ন সংক্রান্ত নীতিনির্ধারণী কমিটি রেট এক শতাংশ কমিয়ে পাঁচ শতাংশ থেকে চার শতাংশে নামিয়ে আনার সুপারিশ করে। এরপর থেকেই ব্যাংক রেট কমানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়।

    গতকাল বুধবার মুদ্রানীতি ঘোষণার পর বাংলাদেশ ব্যাংক প্রজ্ঞাপন জারি করে ব্যাংক রেট চার শতাংশ র্নিধারণের ঘোষণা দিয়েছে।

    ব্যাংক রেট কমলে বিনিয়োগকারীদের কম সুদে বিনিয়োগ পেতে সহায়তা হবে বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন।

    কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, ২০০৩ সালের ৬ নভেম্বর ব্যাংক রেট ছয় শতাংশ থেকে এক শতাংশ কমিয়ে পাঁচ শতাংশ করা হয়। এর আগে ২০০২ সালের ২৩ অক্টোরব পর্যন্ত ব্যাংক রেট ছিল সাত শতাংশ। তারও আগে ২০০০ সালের ২৯ আগস্ট পর্যন্ত রেট ছিল আট শতাংশ।

    কৃষি, ক্ষুদ্র ও মাঝারিখাতসহ সরকারের অগ্রাধিকার খাতগুলোতে কম সুদে ঋণ বিতরণে নীতিনির্ধারণী কমিটির সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতেই ব্যাংক রেট কমানোর হয়েছে বলে জানিয়েছে ব্যাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র।

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

    বাণিজ্য মেলার পর্দা নামছে আজ

    ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

    Calendar

    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০  

    এক ক্লিকে বিভাগের খবর

    div1 div2 div3 div4 div5 div6 div7 div8
  • বাংলাদেশে

    আক্রান্ত
    ৮৬৬,৮৭৭
    সুস্থ
    ৭৯১,৫৫৩
    মৃত্যু
    ১৩,৭৮৭
    সূত্র: আইইডিসিআর

    বিশ্বে

    আক্রান্ত
    ১৭৭,৬৮২,৮৭২
    সুস্থ
    ১১৫,৯৩৭,২৮০
    মৃত্যু
    ৩,৮৫১,২৬৮