মাত্র পাওয়া

শ্রীপুরে ইউনিয়ন পর্যায়ের ডাকঘরের সার্ভিস শূন্যের কোঠায়

| ১৫ অক্টোবর ২০২১ | ৯:৪৯ অপরাহ্ণ

শ্রীপুরে ইউনিয়ন পর্যায়ের ডাকঘরের সার্ভিস শূন্যের কোঠায়

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ‘চিঠি লিখেছে বউ আমার ভাঙা ভাঙা হাতে—’ চিঠি নিয়ে এমন জনপ্রিয় অনেক গান রয়েছে যা আজও মানুষের মুখে মুখে। কবি, সাহিত্যিকরা লিখেছেন হাজারো কবিতা ও গল্প। লুকিয়ে লুকিয়ে প্রিয় জনের চিঠি পড়া আর চিঠিতে চুমু খাওয়ার সেই মধুময় স্মৃতির কথা মনে করে এখনো অনেকেই রোমাঞ্চিত হোন। চিঠির কথা আসলেই সামনে আসে ডাকঘরের কথা। কারণ প্রিয়জনের কাছে চিঠি পৌছানোর একমাত্র উপায় ছিলো পোস্ট অফিস বা ডাকঘর। প্রযুক্তির ছোঁয়ায় সেই চিঠিকাল আর নেই। স্মার্ট মোবাইলে এসএমএস ও ই-মেইল প্রযুক্তির কারণে ব্যক্তিগত চিঠি আদান-প্রদান বন্ধ হলেও সরকারি অফিস-আদালতের সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ চিঠি ও কাগজপত্র এই ডাকঘরের মাধ্যমেই আদান-প্রদান হয়ে থাকে। তবে গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলার ইউনিয়ন পর্যায়ের ডাকঘর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কর্তব্যে গাফিলতির কারণে সাধারণ মানুষ ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।
উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের ডাকঘর এই প্রতিবেদক টানা তিনদিন ঘুরেও খোলা পাননি। গত ৯ তারিখ বিশ^ ডাক দিবসেও এই ডাকঘরের কর্মকর্তাকে পাওয়া যায়নি। খোঁজ নিয়ে জানা যায় উপজেলার ইউনিয়ন পর্যায়ের প্রায় সবকটি শাখার একই চিত্র। সরেজমিন ঘুরে দেখা যায় ডাকঘর থাকলেও কর্মকর্তা নেই। কোনো কোনো শাখা সম্পূর্ণ বন্ধ রয়েছে। নির্ধারিত বিল্ডিংয়ের দেয়ালে ফোন নম্বর দেয়া থাকলেও যোগাযোগ করে সময়মত সার্ভিস পাওয়া যাচ্ছে না, এমন অভিযোগ অনেকের।
কথা হয় স্থানীয় মাজহারুল ইসলাম নামের সেবাপ্রত্যাশি
একজন ভুক্তভোগীর সাথে। এনটিআরসিএ’র (বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যায়ন কর্তৃপক্ষ) তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তীতে প্রকাশিত ফলাফলে প্রাথমিকভাবে ৩৮ হাজার সুপারিশপ্রাপ্ত শিক্ষকের মধ্যেতিনি একজন। তিনি জানান, এনটিআরসিএ কর্তৃক ভি-রোল ফরম ডাকযোগে প্রেরণের নির্দেশনার কারণে ডাকঘরে গিয়ে তাঁর ফরম পাঠাতে পারেননি। টানা কয়েকদিন ঘুরে অবশেষে উপজেলার প্রধান শাখা থেকেই তাঁর ভি-রোল ফরমের চিঠি পোস্ট করেন। এতে তাকে তাঁর কর্মস্থল থেকে ছুটি নিতে হয়েছে এবং আর্থিক লোকসানও গুণতে হয়েছে।

এ বিষয়ে মাওনা ইউনিয়ন ডাকঘরের প্রধান কর্মকর্তা ইডিএ সালমা আক্তার জানান, আমি গত ৯ অক্টোবর থেকে ছুটিতে আছি। ৯ অক্টোবর বিশ্ব ডাক দিবস, এ দিনেও ডাকঘরের চাকরি করে ছুটিতে থাকার বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, আমরা সেবা দিতে চাই। তবে ইউনিয়ন পর্যায়ের শাখাগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণ রেভিনিউ না থাকায় অধিক সংখ্যক মানুষজনকে সাপোর্ট দিতে পারি না।

শ্রীপুর উপজেলা পোস্ট মাস্টার ফাইজুদ্দিন জানান, ইউনিয়ন পর্যায়ে চুক্তিভিত্তিক ইডিএ (এক্সট্রা ডেলিভারি এজেন্সি) কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়। তাদের কমপক্ষে ১০ টা থেকে বেলা ২ পর্যন্ত যথারীতি নিয়মমাফিক অফিস করতে হবে। জনগণের সুবিধার জন্যেই তাঁদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে। ডাকঘর শুধুমাত্র চিঠিপত্রের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। পোস্ট অফিস সেভিংস ব্যাংক বা ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের বিষয়টিও রয়েছে। তাই সকল ইডিএকে নিয়ম মেনেই চাকরি করতে হবে।

উপজেলার ইউনিয়ন শাখার ডাকঘরের এই অবস্থার কথা শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তরিকুল ইসলামকে জানালে তিনি বলেন, এমনটা কেনো থাকবে, আমি অবশ্যই পোস্ট মাস্টারের সাথে কথা বলে সকল শাখাই যাতে প্রপারলি চালিত হয় সে ব্যবস্থা করছি।

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

Calendar

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  

এক ক্লিকে বিভাগের খবর

div1 div2 div3 div4 div5 div6 div7 div8
  • Our Visitor

    0 0 2 2 1 4
    Users Today : 29
    Users Yesterday : 47
    Users Last 7 days : 128
    Users Last 30 days : 569
    Users This Month : 107
    Users This Year : 2213
    Total Users : 2214
    Views Today : 32
    Views Yesterday : 99
    Views Last 7 days : 274
    Views Last 30 days : 1101
    Views This Month : 203
    Views This Year : 3284
    Total views : 3285
    Who's Online : 3
    Your IP Address : 54.144.55.253
    Server Time : 2021-12-05